বইয়ে খোঁজার সময় নাই
সব কিছু এখানেই পাই

অনুচ্ছেদ : মঙ্গল শোভাযাত্রা

মঙ্গল শোভাযাত্রা


মঙ্গল শোভাযাত্রা হলো বংলা নববর্ষের প্রথম দিনের প্রথম সকালে সম্মিলিতভাবে সজ্জাসহকারে হাঁটা। প্রতিবছর হাজার হাজার মানুষ মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশ নেয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা (ফাইন আর্টস) অনুষদের শিক্ষার্থীদের তৈরি করা নানারকম প্রতিলিপি যেমন- মাছ, পাখি, প্রাণী ও অন্যান্য মোটিফের প্রতিলিপি সমন্বিত করা হয় মঙ্গল শোভাযাত্রার মিছিলে। চারুকলা অনুষদের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রথম মিছিল সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। উৎসবটি বাংলাদেশি মানুষের ধর্মনিরপেক্ষ পরিচয় প্রকাশ এবং ঐক্য উন্নয়নের একটি উপায় হিসেবে পরিচিতি পায়। ২০১৪ সালে বাংলা একাডেমি মঙ্গল শোভাযাত্রার একটি মনোনয়ন ফাইল সংকলন করে যা বাংলাদেশ সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক অনুমোদিত হয় এবং ইউনেস্কোতে জমা দেয়। ৩০ নভেম্বর ২০১৩ সালে ইউনেস্কো মঙ্গল শোভাযাত্রাকে একটি অমূল্য সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ঘোষণা করে। এই উৎসবের মিছিলটি প্রথম শুরু হয়েছিল ১৯৮৯ সালে যখন স্বৈরাচারী শাসক হোসেন মুহাম্মদ এরশাদ রাষ্ট্রপতি ছিলেন। সেই সময় বাংলাদেশ সামরিক একনায়কত্বের অধীনে ছিল এবং বন্যার শিকার হয়েছিল। ফলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের অধ্যাপকগণ স্বৈরাচার শাসনবিরোধী প্রয়াস প্রতিফলনের জন্য ঢাকায় এক পাঞ্জাব বৈশাখের মংলা শোভাযাত্রার ব্যবস্থা করেন। পরে এটি মঙ্গল শোভাযাত্রা নামকরণ হয়েছিল। বাংলাদেশের মঙ্গল শোভাযাত্রা আজ বিশ্বের নানা প্রাঙ্গনে অনুসরণীয় হচ্ছে। ২০১৭ সালে ভারতেও মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। ইউনেস্কো কর্তৃক অমূল্য ঐতিহ্য ঘোষণা লাভ করার পর থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রার আন্তর্জাতিক গুরুত্ব বৃদ্ধি পাচ্ছে। অপশাসনবিরোধী উদ্যোগ হিসেবে এটি একটি অন্যতম উপায় হিসেবে পরিণত হচ্ছে।

No comments