বইয়ে খোঁজার সময় নাই
সব কিছু এখানেই পাই

অনুচ্ছেদ : ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য : জামদানি

ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য : জামদানি


জামদানি কার্পাস তুলা দিয়ে প্রস্তুত এক ধরনের বস্ত্র যার বয়ন পদ্ধতি অনেকটা মসলিনের মত। জামদানি নানা স্থানে তৈরি করা হয় বটে কিন্তু ঢাকাকেই জামদানির আদি জন্মস্থান বলা হয়। এর ঐতিহাসিক উৎপাদন মুঘল সম্রাটদের রাজকীয় শাসন দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছিল। মুঘল সাম্রাজ্যের অধীনে ফার্সি শব্দ জামদানির জনপ্রিয় ব্যবহার আসে। কারণ এটি মুগলদের কোর্ট ভাষা ছিল। সাধারণত মনে করা হয় মুসলমানেরাই ভারত-উপমহাদেশে জামদানির প্রচলন ও বিস্তার করেন জাম পরিবেশনকারী ইরানী সাকীর পরনের মসলিন থেকে ‘জামদানি’ নামের উৎপত্তি ঘটেছে। জামদানি বয়ন প্রথাটি বাংলার উৎপত্তি। জামদানি ভৌগোলিক নির্দেশক (জিআই) ক্লাসিক মসলিনের নৈপুণ্যের পরিচায়ক এবং দেশের সেরা বস্ত্রগুলোর মধ্যে অন্যতম যা জিআই নিবন্ধন পেয়েছে। জিআই অ্যাক্ট ২০১৩ অনুযায়ী কেউ যদি প্রত্যায়িক জিআই পণ্যগুলি নিজের দাবি করতে চায় বা সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকে তবে তাকে গেজেটের ২ মাসের মধ্যে জানাতে হবে। তাই জামদানিকে নিবন্ধিত ভৌগোলিক নির্দেশক পণ্য হিসেবে সরকার ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পকে যথাযথ ভূষিত করেছে। বর্তমানে জামদানি বাংলাদেশের একটি একক পণ্য। জামদানির উৎপত্তি এবং শিল্পের উন্নয়ন কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্রে পাওয়া যায়। ঊনিশ শতকে ব্রিটিশদের সস্তা সুতার কাপড় আমদানির ফলে জামদানির উৎপাদন হ্রাস পেয়েছিল। তবে বর্তমানে জামদানি চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশের নারায়নগঞ্জে এখন জামদানি পল্লি গড়ে উঠেছে।

No comments