My All Garbage

Shuchi Potro
সাধারণ জ্ঞান বাংলা ব্যাকরণ বাংলা রচনা সমগ্র ভাবসম্প্রসারণ তালিকা অনুচ্ছেদ চিঠি-পত্র ও দরখাস্ত প্রতিবেদন প্রণয়ন অভিজ্ঞতা বর্ণনা সারাংশ সারমর্ম খুদে গল্প ভাষণ লিখন দিনলিপি সংলাপ অ্যাসাইনমেন্ট-২০২১ English Grammar Composition / Essay Paragraph Letter, Application & Email Dialogue List Completing Story Report Writing Graphs & Charts পুঞ্জ সংগ্রহ বই পোকা হ য ব র ল তথ্যকোষ পাঠ্যপুস্তক CV & Job Application My Study Note আমার কলম সাফল্যের পথে
About Contact Service Privacy Terms Disclaimer Earn Money


বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শিক্ষা সহায়ক ওয়েব সাইট

৯ম শ্রেণি : পৌরনীতি ও নাগরিকতা : ৯ম সপ্তাহ : ২০২১

৯ম শ্রেণি : পৌরনীতি ও নাগরিকতা : ৯ম সপ্তাহ

‘রাষ্ট্রের উৎপত্তি ও রাষ্ট্র গঠনের উপাদান’ এই শিরোনামে নিম্নের সংকেত অনুসরণ করে সর্বোচ্চ ৩০০ শব্দের মধ্যে একটি প্রবন্ধ লিখ।

সংকেত :
১। রাষ্ট্রের উৎপত্তি সম্পর্কে তোমার দৃষ্টিতে অধিক গ্রহণযোগ্য মতবাদ।
২। মতবাদটি অধিক গ্রহণযোগ্য মনে হওয়ার যৌক্তিক কারণ।
৩। রাষ্ট্র গঠনের উপাদান সমূহ
৪। তোমার দৃষ্টিতে রাষ্ট্রের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।
৫। উক্ত উপাদানটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মনে হওয়ার যৌক্তিক ব্যাখ্যা।

নমুনা সমাধান

রাষ্ট্রের উৎপত্তি ও রাষ্ট্রের গঠনের উপাদান

রাষ্ট্রের উৎপত্তি সম্পর্কে অধিক গ্রহণযোগ্য মতবাদ : আমার মতে রাষ্ট্রের উৎপত্তি সম্পর্কে অধিক গ্রহণযোগ্য মতবাদ হলো ঐতিহাসিক মতবাদ বা বিবর্তনমূলক মতবাদ। এ মতবাদের মূলবিষয় হলো- রাষ্ট্র কোন একটি বিশেষ কারণে সৃষ্টি হয়নি। দীর্ঘদিনের বিবর্তনের মাধ্যমে সমাজের বিভিন্ন স্তরে বিভিন্ন শক্তি ও উপাদান ধীরে ধীরে পরিবর্তিত হতে হতে রাষ্ট্রের সৃষ্টি হয়েছে। যেসব উৎপাদনের কার্যকারিতার ফলে রাষ্ট্রের উৎপত্তি হয়েছে সেগুলো হলো- সংস্কৃতির বন্ধন, রক্তের বন্ধন, ধর্মের বন্ধন, যুদ্ধবিগ্রহ, অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক চেতনা ও কার্যকলাপ। ঐতিহাসিক মতবাদ বা বিবর্তনমূলক মতবাদ সম্পর্কে ড.গার্নার বলেন,
রাষ্ট্র বিধাতার সৃষ্টি নয়, বল প্রয়োগের মাধ্যমে ও সৃষ্টি হয়নি বরং ঐতিহাসিক কর্মবিবর্তনের ফলে রাষ্ট্রের উৎপত্তি হয়েছে। 

মতবাদটি অধিক গ্রহণযোগ্য মনে করার যৌক্তিক কারণ : রাষ্ট্রের উৎপত্তি সসম্পর্কিত বিভিন্ন মতবাদের মধ্যে ঐতিহাসিক মতবাদ বা বিবর্তনমূলক মতবাদ সবচেয়ে যুক্তিযুক্ত ও গ্রহণযোগ্য মতবাদ।এ মতবাদে রাষ্ট্রের উৎপত্তি সম্পর্কে সঠিক তথ্য পাওয়া যায়। আসলেই বর্তমান রাষ্ট্র বহু বিবর্তনের ফল।

রাষ্ট্রের গঠনের উপাদান : অধ্যাপক গার্নার বলেন,
সুনির্দিষ্ট ভূখণ্ডে স্থায়ীয়ভাবে বসবাসকারী সুসংগঠিত সরকারের প্রতি স্বভাবজাত ভাবে আনুগত্যশীল, বহিঃশত্রুর নিয়ন্ত্রণ হতে মুক্ত স্বাধীন জনসমষ্টিকে রাষ্ট্র বলে।

এ সংজ্ঞা বিশ্লেষণ করলে রাষ্ট্রের চারটি উপাদান পাওয়া যায়। যথা :

১) জনসমষ্টি : রাষ্ট্রের গঠনের অপরিহার্য উপাদান জনসমষ্টি। কোনো ভূখণ্ডে একটি জনগোষ্ঠী স্থায়ীভাবে বসবাস করলেই রাষ্ট্র গঠিত হতে পারে।

২) নির্দিষ্ট ভূখণ্ড : রাষ্ট্রের গঠনের জন্য নির্দিষ্ট ভূখণ্ড আবশ্যক। ভূখণ্ড বলতে রাষ্ট্রের স্থলভাগ, জলভাগ, ও আকাশ সীমাকে বুঝায়।

৩) সরকার : রাষ্ট্রের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান সরকার।সরকার ছাড়া রাষ্ট্র গঠন হতে পারে না।রাষ্ট্রের যাবতীয় কার্যাবলী সরকারের মাধ্যমে পরিচালিত হয়।

৪) সার্বভৌমত্ব : সার্বভৌমত্ব রাষ্ট্রের গঠনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও অত্যাবশকীয় উপাদান।এটি রাষ্ট্রের চরম, পরম ও সর্বোচ্চ ক্ষমতা। এর দুটি দিক আছে, যথা- অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক। অভ্যন্তরীণ সার্বভৌমত্বের মাধ্যমে রাষ্ট্র দেশের অভ্যন্তরে বিভিন্ন আইন জারি করে ব্যক্তি ও প্রতিষ্টানের উপর কর্তৃত্ব করে। বাহ্যিক সার্বভৌমত্বের মাধ্যমে দেশকে বহিঃশত্রুর আক্রমণ ও দেশদ্রোহিতা থেকে রক্ষা করে।

সার্বভৌমত্ব সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মনে হওয়ার যৌক্তিক ব্যাখা : স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্র হলো একটি অবস্তুগত বৈধগত সত্তা যা কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক পরিচালিত হয় ও যার একটি নির্দিষ্ট ভুখন্ডে বিদ্যমান।সাধারণ অর্থে, একটি  সার্বভৌম রাষ্ট্র অন্য কোন শক্তি বা অন্য কোন রাষ্ট্রের উপর নির্ভরশীল বা অন্য কোন রাষ্ট্র দ্বারা প্রভাবিত হয়না।রাষ্ট্রের অস্তিত্ব বিলুপ্ত একটি আইনগত প্রত্যয়।রাষ্ট্র সত্তার ঘোষণামূলক তত্ত্বানুযায়ী কোন রাষ্ট্র অনুযায়ী অন্য সার্বভৌম রাষ্ট্রের স্বীকৃতি ছাড়াও একটি সার্বভৌম রাষ্ট্রের  অস্তিত্ব থাকতে পারে।কিন্তু কখনো কখনো অস্বীকৃত রাষ্ট্রসমূহ অন্যান্য রাষ্ট্রের সাথে  কুটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনে অপারগ হয়।তাই বলা যায় রাষ্ট্রের চারটি উপাদানের মধ্যে সার্বভৌমত্ব সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।


আরো দেখুন :

৯ম সপ্তাহের নমুনা সমাধান :

No comments