শিক্ষাসফরে যাওয়ার অনুমতি ও আর্থিক সহায়তা জন্য আবেদনপত্র

বিদ্যালয় হতে শিক্ষাসফরে যাওয়ার অনুমতি ও আর্থিক সহায়তা প্রার্থনা করে তোমার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে আবেদনপত্র রচনা করো। 

বা, মনে করো, তুমি রাজু। তোমার বিদ্যালয় ‘মুনলাইট উচ্চ বিদ্যালয়’। শিক্ষাসফরে যাওয়ার অনুমতি প্রার্থনা করে তোমার বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের কাছে একটি দরখাস্ত লেখো। 

বা, শিক্ষাসফরে যাওয়ার অনুমতি প্রার্থনা করে প্রধান শিক্ষকের নিকট একটা আবেদনপত্র লেখো। 

বা, ইতিহাসের জ্ঞান ও বাস্তব অভিজ্ঞতা অর্জনের লক্ষ্যে কোনো ঐতিহাসিক স্থানে শিক্ষাসফরে যাওয়ার অনুমতি প্রার্থনা করে দশম শ্রেণির পক্ষ থেকে প্রধান শিক্ষক/শিক্ষিকা বরাবর একখানা দরখাস্ত লেখো। 

বা, শিক্ষাসফরে যাওয়ার অনুমতি প্রার্থনা করে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নিকট একখানা আবেদনপত্র লেখো। 


২১শে জুলাই, ২০২১

বরাবর
প্রধান শিক্ষক
মুনলাইট উচ্চ বিদ্যালয়
মানিকগঞ্জ

বিষয় : শিক্ষাসফরে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ ও অনুমতির জন্য আবেদন।

জনাব,
বিনীত নিবেদন এই যে, আমরা আপনার স্কুলের দশম শ্রেণির ছাত্রছাত্রী। সামনের মাসের প্রথম সপ্তাহে আমরা শিক্ষাসফরে যাওয়ার মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিয়েছি। পাঠ্যসূচিভুক্ত তত্ত্বীয় জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি ব্যবহারিক জ্ঞান অর্জনে শিক্ষাসফরের কোনো বিকল্প নেই, সে বিষয়ে সম্মানিত শিক্ষকমণ্ডলী প্রায়ই আমাদেরকে অবগত করেন। বাস্তবিকই শিক্ষাসফর শিক্ষার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয়। যে বিষয়টা পাঠ্যসূচিতে অন্তর্ভুক্ত, সে বিষয়টা পড়ার পাশাপাশি যদি বাস্তবে তার সঙ্গে পরিচিত হওয়া যায় তবে তা সে জ্ঞানলাভে আরও বেশি ফলপ্রসূ হবে, সে ব্যাপারে আপনি আমাদের চেয়েও ভালো জানেন। তাই আপনার অনুমতিসাপেক্ষে আমরা বগুড়ার মহাস্থানগড়ে পড়েছি, এবার এ ঐতিহাসিক স্থানটি বাস্তবে দেখতে চাই। বর্ধিত করতে চাই মহাস্থানগড় সম্পর্কে আমাদের জানার পরিধি। 

অতএব, মহোদয়ের কাছে বিনীত প্রার্থনা, আমাদেরকে শিক্ষাসফরের অনুমতি ও প্রয়োজনীয় আর্থিক বরাদ্দ দিয়ে বাধিত করবেন। 

নিবেদক

রাজু আহমেদ
মুনলাইট উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের পক্ষে।


একই দরখাস্ত আরেকবার সংগ্রহ করে দেওয়া হলো


তারিখ : ১৬ অক্টোবর, ২০২১

বরাবর
প্রধান শিক্ষক,
উত্তরা হাই স্কুল, ঢাকা।

বিষয় : শিক্ষাসফরে যাওয়ার অনুমতির জন্য আবেদন।

জনাব,
বিনীত নিবেদন এই যে, আমরা আপনার বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র। আমরা শিক্ষাসফরে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। বর্তমান সময়ে শিক্ষাসফরের গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। তাই আমরা নওগা জেলার পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার পরিদর্শনে যেতে চাই। এ বিহারে সংরক্ষিত রয়েছে আমাদের প্রাচীন সভ্যতার নিদর্শন। পাঠ্যপুস্তক পাঠের সঙ্গে ভ্রমণের প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতা আমাদের জ্ঞানের পরিধিকে আরও সমৃদ্ধ করবে। শিক্ষাসফরের প্রয়োজনীয় অর্থের অর্ধাংশ আমরা বহন করতে প্রস্তুত। বাকি অর্থ বিদ্যালয় তহবিল থেকে দেওয়ার জন্য আপনার কাছে বিনীত অনুরোধ জানাচ্ছি।

অতএব, আপনার নিকট বিনীত প্রার্থনা শিক্ষাসফরের গুরুত্ব বিবেচনা সাপেক্ষ আমাদের প্রস্তাবিত শিক্ষাসফরের অনুমতি ও অর্ধেক খরচ প্রদানের সম্মতি জানিয়ে বাধিত করবেন।

বিনীত
সপ্তম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পক্ষে
শাহিনুর রহমান

3 Comments

Post a Comment
Previous Post Next Post