শিক্ষা সফরের গুরুত্ব বর্ণনা করে ছোট ভাইকে / বন্ধুকে চিঠি

ছাত্রজীবনে শিক্ষা সফরের গুরুত্ব বর্ণনা করে ছোট ভাইয়ের কাছে একটি পত্র লেখো। 

বা, মনে করো, তুমি তপু। তুমি রংপুরে থাক। ছাত্রজীবনে শিক্ষাসফরের গুরুত্ব উল্লেখ করে তোমার ছোট ভাই দীপুর কাছে একটি চিঠি লেখো।


রংপুর
৮ই জানুয়ারি, ২০২০

স্নেহধন্য দীপু,
আশা করি শারীরিক ও মানসিকভাবে ভালো আছ। আমরাও ভালো আছি। তুমি জেনে খুশি হবে যে, আগামীকাল আমাদের ক্লাসের সবাই মিলে বগুড়ার মহাস্থানগড়ে শিক্ষাসফরে যাচ্ছি। 

আসলে আমাদের প্রত্যেকেরিই প্রতিবছর শিক্ষাসফরে যাওয়া উচিত। যেমন ধরো, আমরা যদি মহাস্থানগড়ে যাই তবে সেখানকার অনেক পুরাকীর্তি দেখতে পাব এবং সেই বৌদ্ধযুগের স্থাপত্য ও ভাস্কর্য সম্পর্কে জানতে পারব। তাছাড়া জাতীয় ইতিহাস আমাদের সকলেরই জানা প্রয়োজন। শুধু বই পড়ে পরিপূর্ণ জ্ঞানলাভ করা যায় না। ইতিহাসমৃদ্ধ জায়গাগুলোতে শিক্ষাসফরের মাধ্যমে জ্ঞানের পূর্ণতা অর্জন সম্ভব। বাস্তব শিক্ষার জন্য শিক্ষাসফরের কোনো বিকল্প নেই। আবার আমরা যে গণ্ডিবদ্ধ জীবনযাপন করি, সেই নিয়মের বাইরে গিয়ে একঘেয়েমি পরিহার করতে হলেও শিক্ষাসফর প্রয়োজন। এ সফর আমাদের সাংগঠনিক দক্ষতা বাড়াাাবে এবং নতুন উদ্যমে কাজ করতে উৎসাহ জোগাবে। আশা করব তোমারও এ ব্যাপারে আগ্রহ তৈরি হবে। 

আব্বা-আম্মাকে সালাম আর মনিকে শুভেচ্ছা জানিও। সময় পেলে আমাকে চিঠি লিখো। 

ইতি-
তোমার বড় ভাই
তপু



একই চিঠি বন্ধুর নিকট কিভাবে লিখতে হবে তার নমুনা দেওয়া হলো


ছাত্রজীবনে শিক্ষাসফরের গুরুত্ব উল্লেখ করে তোমার বন্ধুর নিকট একটি পত্র লেখ।


মগবাজার, ঢাকা
১১ অক্টোবর, ২০২১

প্রিয় তপন,
আমার হৃদয়ের ভালোবাসা গ্রহণ কর। আশা করি ভালো আছ। আমরা স্কুলের কয়েকজন বন্ধু মিলে উত্তরবঙ্গের মহস্থানগড় ভ্রমণে যাব বলে ঠিক করেছি। শিক্ষাজীবনে এর গুরুত্ব আছে বলেই আমাদের এ ভ্রমণ। তাই এ ব্যাপারে তোমাকে লিখছি।

সংস্কৃতে আছে ‘ছাত্রনং অধ্যয়নং তপঃ’ অর্থাৎ অধ্যয়নই ছাত্রজীবনের তপস্যা। কিন্তু এ অধ্যয়ন থেকে লাভ করা জ্ঞান জীবনের সাথে মিলিয়ে জীবনের বিকাশকে পরিপূর্ণ করে তুলতে হবে। ভ্রমণে ঐতিহাসিক স্থান দেখার সাথে এর ইতিহাসকে খুব কাছ থেকে জানা যায়। বইয়ের অস্পষ্ট বিমূর্ত ধারণাটি মূর্ত হয়ে ওঠে ঐতিহাসিক স্থানে ভ্রমণে গেলে। দেশের ভূপ্রকৃতি, সম্পদ, মানুষের জীবনপ্রণালি, ভূগোলের জ্ঞান সম্পর্কে কত কিছু জানা যায়। ভ্রমণ শিক্ষার একটি অঙ্গ। চোখে দেখে যা জানা যায়, বই পড়ে তা জানা সম্ভব হয় না বাংলাদেশের আনাচে কানাচে যে কত পুরাকীর্তি লুকিয়ে আছে তা ভাবাই যায় না। আর ভ্রমণের মাধ্যমে দেশকে এবং দেশের মানুষকে জানা সম্ভব হয় খুব সহজে। যেসব জিনিস দেখতে সক্ষম হবে সেগুলো যেন আমার ইতিহাস শিক্ষার উদ্দেশ্যকে সাফল্যমণ্ডিত করতে সক্ষম হয়। এ সফর আমার জন্য যে কত গুরুত্বপূর্ণ তা বর্ণনা করা সম্ভব নয়। আশা করি, তুমিও এ শিক্ষাসফরে আগ্রহী হয়ে আমাদের সাথে যোগদান করবে। তোমার পরীক্ষার প্রস্তুতি জানিয়ে সুখী করবে। তোমার আব্বা-আম্মাকে আমার সালাম জানাবে এবং ছোটদের প্রতি রইল স্নেহাশীষ ।

ইতি
তোমার বন্ধু
তাওহীদ


2 Comments

Post a Comment
Previous Post Next Post