বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শিক্ষা সহায়ক ওয়েব সাইট

TIRED অর্থ SUCCESS

দোস্ত অনেক টায়ার্ড হয়ে গেছি! সারাদিন অফিস করে ক্লান্ত শরীরে এসব ঝামেলা ভাল্লাগেনা! কাজ আর কাজ উফ! টায়ার্ড হয়ে গেলাম! মামা আজ যেতে পারবো নারে শরীর খুব টায়ার্ড!

আমরা কোনো একটা কিছু যখন অনেকক্ষণ ধরে করি তখন কমবেশি সবাই উপরোক্ত কথাগুলো বলে থাকি। 'টায়ার্ড' শব্দটার সাথে আমরা সবাই কমবেশি পরিচিত। শব্দটির ইংরেজি প্রতিশব্দ হল:
" Tired "
আপনি চাইলে এই একটিমাত্র শব্দ Tired কে আপনার অনুপ্রেরণা বানিয়ে আপনার লাইফের গোল এ্যাচিভ করতে পারেন। শুধুমাত্র এই 'Tired' ফর্মুলা ইউস করেই হতে পারেন একজন সফল মানুষ। কিন্তু কিভাবে—

T   I   R   E   D

১। টায়ার্ড শব্দের শুরুটা হয়েছে T দিয়ে। আমরা সবাই কমবেশি T → Technique মানে আপনাকে কৌশলী হতে হবে। আপনার কলাকৌশল বাড়াতে হবে। দেখুন আপনার চারপাশে যারা আছে তারা যা করে আপনিও তাই করেন। তারপরেও দিনশেষে কেউ এক একজন সফল মানুষ হয়। কেউ ফেইলর হয়। কিন্তু কথা হচ্ছে কেন এমন হয়? সবচেয়ে ভালোটি সবচেয়ে ভালো ভাবে কি করে করে। বিজয়ীরা বেশি কিছু করেনা। তারা একই কাজ ভিন্ন ভাবে করে থাকে। দিন বদলে যাচ্ছে। কনসেপ্ট গুলো বদলে যাচ্ছে। তাই আপনার নিজেকেও বদলাতে হবে। প্রাচীন পুরনো হাতিয়ার আঁকড়ে ধরে আপনি এ যুগে তাল মেলাতে পারবেন না। তাই আপনাকে হতে হবে কৌশলী। নতুন নতুন আইডিয়া ধারণা কৌশল আয়ত্তে আনতে হবে। বশ করতে হবে সবচেয়ে নতুন আর লেটেস্ট টেকনিককে। তবেই আপনিও পারবেন।

২। টায়ার্ড শব্দটির ২য় বর্ণ I – means Increase অর্থাৎ বৃদ্ধি করা। আপনি যদি একজন সফল ডক্টর ইঞ্জিনিয়ার বিজনেসম্যান অর্থাৎ একজন সফল মানব হতে চান তো প্রথমে আপনার জানার পরিধি বাড়াতে হবে। আপনার হোমওয়ার্ক বাড়াতে হবে। কাজে সময় বাড়াতে হবে। মনোযোগ বাড়িয়ে দিতে হবে। আপনি এখন অবস্থানে আছেন সেই অবস্থান হতে আপনার ডেভলপমেন্ট এর সাথে সংশ্লিষ্ট জ্ঞানের পরিধি বৃদ্ধি করতে হবে। কথায় বলে — Time is money অর্থাৎ সময় হল একধরনের সম্পদ।পৃথিবীর সবচেয়ে দামী জিনিস সময়। যা দিয়ে সকল কিছু করা সম্ভব। আর তাই আপনার কাজের জন্য আপনার উন্নতির জন্য প্রয়োজনীয় কাজে সময়ের ব্যবহার বাড়িয়ে দিন।

৩। থার্ড লেটার R আপনাকে বোঝাবে Restore করা। আপনার করে আসা পুরাতন টাস্ক আপনার অতীত কাজগুলো মাঝেমধ্যে Restore করতে হবে। নয়তো আপনি একদম ভুলে যেতে পারেন। আর তাই মাঝেমধ্যে কিছু সময় বের করুন আর অতীতের পড়াগুলো পড়ে ফেলুন। সবচেয়ে ভালো হয় প্রতিদিনের শেষে একটা ফিক্সড সময় রাখা এবং সে সময় আপনার নিজেকে ঝালাই করার কিংবা রিস্টোর করুন আপনার মেমোরির। আমাদের মস্তিষ্কের স্মৃতিনার্ভ গুলো যাকে বায়োলজি তে কর্টেক্স বলে থাকে। সেগুলো যখন কিছু সেভ করে তখন তা কম্পয়িত হয়ে থাকে। আর তাই পুরনো গুলো যাতে আমরা ভুলতে না বসি সেজন্যে মাঝেমধ্যে স্মৃতিচারণ করতে হবে। এতে আপনার কর্টেক্স আন্দোলিত হবে এবং মেমোরিতে দীর্ঘসময় ধরে রাখবে।

৪। পঞ্চম বর্ণ E কে আপনি সাজাতে পারেন আপনার Efficiency–র কাজে। আপনি যতোবেশি দক্ষ হবেন! দক্ষতার পাল্লা যতো ভারী হবে ততোবেশি আপনি সফলতার পদসোপানে এগিয়ে যাবেন। কাজেই আপনার যোগ্যতা আপনার সার্মথ্য বাড়াতে থাকুন। মনে রাখবেন — গুরুত্বপূর্ণ কাজ আর পদগুলোর জন্য অধিকতর যোগ্য এবং দক্ষ লোক খোঁজা হয়। তাই এমনসব কিছু করুন যেটাতে আপনার অর্জন আছে। গেইন হবে ডেভেলপ হবে। আপনার যেটা নেই কিন্তু সেটার অদূর ভবিষ্যত ভালো এমন কিছু অযোগ্যতা থাকলে তা থেকে দ্রুত সেরে উঠুন।

৫। সর্বশেষ বর্ণ D means — Day by day অর্থাৎ প্রতিদিনের কাজ প্রতিদিন শেষ করতে হবে। দিনের কাজ নির্ধারিত দিনে শেষ করার জন্য দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ থাকতে হবে। আজকের দিন আগামীতে ফিরে আসবে না। কাজেই প্রতিদিনের মূল্য প্রতিদিনই দিতে হবে। কিছু লক্ষ্য নির্ধারণ করুন কিছু টার্গেট ফিক্সড করুন। তারপর নির্ধারিত দিনের ভেতর তার গোলবার স্পর্শ করুন। মনে রাখবেন — সবার দিনই কিন্তু ২৪ ঘন্টা। কাজেই আপনি আলাদাভাবে কিছু না করলে আলাদা কিছু পাবেন না। আপনি অন্যের থেকে নতুন যেটুকু করবেন ততোটুকুর বেনিফিট আপনি পাবেন। এক্সাটারা মাইন্ড খাটলে এক্সাটারা বোনাস পাওয়া যায়।

পরিশেষে বলতে চাই — আমাদের জীবনের প্রতিটা সেকেন্ড মিনি সেকেন্ড থেকেই আমরা ইনসপেরেশন নিতে পারি। বড় হতে হলে সফল হতে হলে কিছু একটা ফোকাস করে নিতে হবে। একটা গেম প্ল্যান নিয়ে এগোতে থাকুন। দিনশেষে না–পাওয়ার হিসাবগুলো রাখুন এবং পরিশেষ সেসব না পাওয়া হিসাব পাওয়ার হিসেবের খাতায় যোগ করুন।

আজিবুল হাসান
৬ এপ্রিল, ২০২১

No comments