বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় শিক্ষা সহায়ক ওয়েব সাইট

প্রতিবেদন : বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন

মনে করো, তোমার নাম রুবেল। তুমি নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র। তোমার বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন করেছ। উক্ত অনুষ্ঠানের বিবরণ দিয়ে প্রধান শিক্ষক বরাবর একটি প্রতিবেদন প্রণয়ন করো।

অথবা, মনে করো, তুমি রুবেল। তুমি নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তোমার বিদ্যালয়ে ‘জাতীয় শোক দিবস-২০২১’ উপলক্ষ্যে আয়োজিত অনুষ্ঠানের বিবরণ দিয়ে প্রধান শিক্ষক বরাবর একটি প্রতিবেদন প্রণয়ন করো।


১৮ই আগস্ট ২০২১

বরাবর
প্রধান শিক্ষক
নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম।

বিষয় : জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষ্যে প্রতিবেদন।
সূত্র : না.স.উ.বি/১০৮/২০২১

জনাব,

নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষ্যে একটি প্রতিবেদন তৈরিতে আদিষ্ট হয়ে নিম্নরূপ প্রতিবেদন উপস্থাপন করছি।

আপনার বিশ্বস্ত
রুবেল হোসেন
নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম।

নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত

যথাযথ ভাবগম্ভীর্য ও পূর্ণ মর্যাদার সাথে গত ১৫ই আগস্ট ২০২১ চট্টগ্রাম জেলার নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে পালিত হলো জাতীয় শোক দিবস।

শোকার্ত পরিবেশে পালিত এই দিবসের মূল অনুষ্ঠান ছিল আলোচনা সভা। প্রধান শিক্ষকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম জেলার জেলা প্রশাসক। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটিকর্পোরেশনের মেয়র।

প্রধান অতিথি তাঁর ভাষণে বলেন, বাঙালি জাতির জীবনে যে অল্প কয়েকজন মানুষ ইতিহাস সৃষ্টি করতে পেরেছেন তাঁদের মধ্যে অন্যতম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। মুক্তিযুদ্ধের সময় তাঁর আহ্বানে জেগে উঠেছিল সমগ্র বাঙালি জাতি। ত্রিশ লক্ষ বাঙালির রক্তে রঞ্জিত এ বাংলায় তিনি হয়ে উঠেছিলেন মুক্তির প্রতীক, প্রেরণার উৎস। কিন্তু ১৫ই আগস্টের ভয়াল রাত্রিতে আমরা সেই অবিসংবাদিত নেতাকে হারিয়েছি।

বিশেষ অতিথি তাঁর বক্তৃতায় বলেন, বঙ্গবন্ধু আমাদের জাতীয় জীবনের প্রেরণা পুরুষ। ১৯৭৫ সালের এই দিনে সেনাবাহিনীর কিছু বিপথগামী কর্মকর্তার হাতে সপরিবারে প্রাণ হারান এই মহান নেতা। ভূলুণ্ঠিত হয় স্বাধীনতার সূর্য।

উপজেলা শিক্ষা অফিসার বলেন, পৃথিবীর খুব কম নেতাই বঙ্গবন্ধুর মতো এমন ঈর্ষণীয় জনপ্রিয়তা লাভ করতে পেরেছিলেন। যোজন যোজন দূরের স্বাধীনতার স্বপ্নকে তিনি বাস্তবে রূপ দিয়েছিলেন। অথচ তাঁকেই ১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। এজন্য এই দিনটিকে জাতীয় শোক দিবস হিসেবে পালন করা হয়। সভাপতির সমাপনী বক্তব্যে প্রধান শিক্ষক বলেন, ১৫ই আগস্ট আমাদের জাতীয় জীবনের একটি কালো অধ্যায়। এ দিনটি এদেশের ১৬ কোটি মানুষ গভীর বেদনার সঙ্গে স্মরণ করে।

১৫ই আগস্টের শহিদদের স্মরণে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এ উপলক্ষ্যে স্বরচিত কবিতা পাঠের আসর, ১৫ই আগস্টের ওপর মির্মিত প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনের ব্যবস্থা করা হয়। সবশেষে কাঙালি ভোজের আয়োজন করা হয়।

প্রতিবেদকের নাম ও ঠিকানা : রুবেল হোসেন, নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, চট্টগ্রাম।
প্রতিবেদনের শিরোনাম : নাসিরাবাদ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত।
প্রতিবেদন তৈরির সময় : সকাল ১০টা;
তারিখ : ১৮ই আগস্ট ২০২১।

No comments