বইয়ে খোঁজার সময় নাই
সব কিছু এখানেই পাই

রচনা : মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আমাদের সংস্কৃতি

ভূমিকা : স্বাধীনতা মানুষের অনন্ত পিপাসা। এ পিপাসা থেকেই মানুষের মনে জন্ম হয় সংগ্রামী চেতনার। আর এ সংগ্রামী চেতনাবোধই মানুষের রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক মুক্তির পথকে সুগম করে স্বাধীনতা অর্জনে উদ্বুদ্ধ করে। আমরা বাঙালি। স্বাধীন বাংলাদেশের অধিবাসী। কিন্তু এ দেশ এক সময় পরাধীন ছিল। সুদীর্ঘ নয় মাসব্যাপী এক রক্তাক্ত মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা অর্জন করেছি স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব, অর্জন করেছি কথা বলার অধিকার, অর্জন করেছি এই স্বাধীন বাংলাদেশ। তাই মুক্তিযুদ্ধ আমাদের জাতীয় জীবনে এক অহঙ্কার, এক স্মরণীয় অধ্যায়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুধু একখণ্ড ভূমি অধিকার করার যুদ্ধ নয়, এ যুদ্ধের চেতনা ছিল অনেক গভীরে; আত্মমুক্তি ও আত্মবিকাশের আকাঙ্ক্ষার লালিত স্বপ্ন।

মুক্তিযুদ্ধের পটভূমি : বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলন তথা মুক্তিযুদ্ধের রয়েছে একটি ঐতিহাসিক পটভূমি। ১৭৫৭ সালের ২৩ জুন ষড়যন্ত্রমূলক যুদ্ধে পলাশীর প্রান্তরে বাংলার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা ইংরেজদের হাতে পরাজিত হন। সে দিন থেকে বাংলার আকাশে স্বাধীনতার সূর্য অস্তমিত হয়। শুরু হয় ইংরেজদের ঔপনিবেশিক শাসন। দু’শ বছর ধরে চলতে থাকে ইংরেজদের শোষণ আর নির্যাতন। শাসন-শোষণ, লাঞ্ছনা আর নিপীড়নের যাঁতাকলে পিষ্ট হয়ে বাঙালি জাতির মনের কোণে জন্ম নিয়েছিল বিক্ষোভ, আন্দোলন আর সংগ্রামের চেতনা। ফলশ্রুতিতে ১৯৪৭ সালে স্বাধীন পাকিস্তান রাষ্ট্রের একাংশরূপে জন্ম নেয় পূর্ব পাকিস্তান। পাকিস্তান সৃষ্টির পর হতে শাসকবর্গের বাঙালি নিধনের ইতিহাস নতুন কোনো ঘটনা নয়। ১৯৫২ সাল থেকে ১৯৭১ সালের ইতিহাস বাঙালিদের হত্যা ও বঞ্চনারই ইতিহাস। জাতীয় জীবন থেকে এ হতাশা মুছে ফেলার জন্য বাঙালিদের করতে হয়েছে ৯ মাসের সশস্ত্র সংগ্রাম মুক্তিযুদ্ধ।

২৫ মার্চ কালরাত : ইয়াহিয়া-ভুট্টো চক্রের ষড়যন্ত্রকে নস্যাৎ করার জন্য বঙ্গবন্ধুর আহুত অসহযোগ আন্দোলন যখন সারা বাংলায় অগ্নিস্ফুলিঙ্গের মতো প্রজ্বলিত হয়ে ওঠে তখন ইয়াহিয়া-ভুট্টো চক্র শেখ মুজিবের সাথে আলোচনার জন্য ১৫ মার্চ ঢাকায় আসেন। শুরু হয় ষড়যন্ত্রের বেড়াজালে ঘেরা তাদের প্রহসনমূলক আলোচনা। অতঃপর ২৫ মার্চ রাতে আলোচনার সমাপ্তি ঘোষণা না করেই ইয়াহিয়া-ভুট্টো রাতের আঁধারে পশ্চিম পাকিস্তানে পলায়ন করেন। ২৫ মার্চ কালরাতেই শুরু হয় নিরস্ত্র বাঙালির ওপর জল্লাদ বাহিনীর বর্বরোচিত নগ্ন হামলা। এ সময় বন্দি হওয়ার পূর্ব মুহূর্তে শেখ মুজিব বাংলার স্বাধীনতা ঘোষণা করে সকলকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর মোকাবিলা করার আহ্বান জানান।

প্রতিরোধ যুদ্ধ : বাঙালি জনসাধারণ অসীম সাহসিকতার সাথে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে দুর্বার প্রতিরোধ গড়ে তোলে। লক্ষ নিরস্ত্র বাঙালিগণ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হিংস্রতা থেকে দেশকে রক্ষা করার জন্য মৃত্যুর দুর্জয় শপথ নিয়ে সংগ্রাম চালিয়ে যেতে থাকে। তারা বিভিন্ন স্থানে ব্যারিকেড সৃষ্টি করে রেলালাইন, ব্রিজ ধ্বংস করে প্রতি পদক্ষেপে পাকিস্তানি বাহিনীকে প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন করতে থাকে।

মুজিবনগর সরকার : স্বৈরাচার ইয়াহিয়া খানের জল্লাদ বাহিনী যখন বাংলাদেশে নারকীয় হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে যেতে থাকে ঠিক তখনই কুষ্টিয়ার মেহেরপুরে (বর্তমান মুজিব নগর) বাংলার রাজনৈতিক নেতৃবর্গ সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে স্বাধীন বাংলার নতুন সরকার গঠন করেন। অতঃপর জাতীয় পরিষদ সদস্য অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল এম এ জি ওসমানীকে স্বাধীন বাংলার সর্বাধিনায়ক নিযুক্ত করা হয়। মুজিব নগর সরকার নবগঠিত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে ১১টি সেক্টরে ভাগ করে যুদ্ধ পরিচালনার নির্দেশ দেন।

মুক্তিযুদ্ধে গেরিলা আক্রমণ : মুক্তিযুদ্ধে গেরিলা বাহিনীর ভূমিকা ছিল অন্যতম। ছাত্র ও যুবকরা শত্রুকে আঘাত হানার জন্য প্রয়োজনীয় রণকৌশল শিখে দ্রুত বাংলার বনে-জঙ্গলে, গ্রামে-গঞ্জে, শহরে-বন্দরে ঢুকে আক্রমণ শুরু করে। মুক্তি বাহিনীর গেরিলা আক্রমণে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী তাদের মনোবল হারিয়ে ফেলে। মুক্তিবাহিনীর সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে ক্রমে তারা ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা প্রভৃতি বড় শহরে পাক বাহিনীর ওপর প্রচণ্ড আঘাত হানতে শুরু করে। নভেম্বর মাসের শেষের দিকে তারা দিনাজপুর, কুষ্টিয়া, খুলনা, যশোরসহ বিস্তৃত এলাকা মুক্ত করে হানাদার বাহিনীর মনোবল ধ্বসিয়ে দেয়।

যৌথ বাহিণীর আক্রমণ ও চূড়ান্ত বিজয় : অতঃপর মুক্তিবাহিনী এবং ভারতীয় বাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত হয় যৌথ কমান্ড। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর ওপর আক্রমণ পরিচালিত হয় আকাশ পথ, স্থলপথ এবং জলপথে। সম্মিলিত বাহিনীর চতুর্মুখী আক্রমণে পাকিস্তানি বাহিনী শীঘ্রই নাজেহাল হয়ে পড়ে। মুক্তি বাহিনী ও ভারতীয় বাহিনীর যৌথ কমান্ডের প্রচণ্ড আঘাতে পাক-হানাদার বাহিনী দিশেহারা হয়ে পড়ে। অতঃপর ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর ইয়াহিয়ার জল্লাদ বাহিনীর সর্বাধিনায়ক এ কে নিয়াজী ৯৩ হাজার সৈন্যসহ যৌথ বাহিনীর সর্বাধিনায়ক জগজিৎ সিং আরোরার নিকট আত্মসমর্পণ করেন। অবশেষে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ বিশ্বের মানচিত্রে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে স্থায়ী আসন লাভ করে।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনার স্বরূপ : অনেক রক্ত আর অসংখ্য জীবনের বিনিময়ে অর্জিত আমাদের স্বাধীনতা। বাঙালি জাতির জীবনে তাই স্বাধীনতার চেতনা যেমন গভীর, তেমনি ব্যাপক। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর তৎকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্রপ্রধান সৈয়দ নজরুল ইসলাম মুক্তিযুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করতে গিয়ে বলেছিলেন, ‘আমরা অত্যন্ত শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি সেসব শহীদদের কথা, সেসব অসম সাহসী বীর যোদ্ধাদের কথা, যারা তাদের আত্মবলিদানের জন্য অমর হয়েছেন, তারাই আমাদের প্রেরণার উৎস হয়ে থাকবেন চিরকাল।’ যে চেতনা ও সাহস নিয়ে মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে বাংলাদেশের সাহিত্য, সংস্কৃতিতে মুক্তিযুদ্ধের সেই যথার্থ প্রতিফলন এখনো ঘটেনি। বরং জাতীয় জীবনের সর্বস্তরে আজ মিথ্যার মলিনতা বিদ্যমান। ফলে আমাদের সব গৌরবই যেন ঢেকে যেতে বসেছে। মানবিক মূল্যবোধ আজ প্রায় নিঃশেষিত ও বিপন্ন। এমতাবস্থায় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, এত কষ্টে অর্জিত এ স্বাধীনতা তথা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা কতটুকু অটুট ও অক্ষত থাকবে, যার মাধ্যমে আমরা আমাদের আগামী প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানাতে পারব?

সংস্কৃতি : সংস্কৃতি হলো মানুষের আচার-আচরণের সমষ্টি। মানুষের জাগতিক নৈপুণ্য ও কর্মকুশলতা, তার বিশ্বাস, আশা-আকাঙ্ক্ষা, নৈতিকতা, রাজনীতি, ভাষা, কলা, মূল্যবোধ সবকিছুই সংস্কৃতির অন্তর্ভুক্ত। সংস্কৃতি হচ্ছে সমাজের মানুষের অর্জিত জ্ঞান, বিশ্বাস, কলা, নীতি, নিয়ম, সংস্কার ও অন্যান্য যে কোনো বিষয়ে দক্ষতার সর্বাধিক সমাবেশ। মোতাহের হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘সংস্কৃতি মানে সুন্দরভাবে, বিচিত্রভাবে বাঁচা।’ তবে সংস্কৃতি শনাক্তকরণের কোনো নির্দিষ্ট বৈশিষ্ট্য নেই, গণ্ডি নেই। এটি চলমান জীবনের প্রতিচ্ছবি। এলাকাভিত্তিক এর ভিন্নতা পরিলক্ষিত হয়। একটা নির্দিষ্ট এলাকার মানুষের জীবন প্রণালী অর্থাৎ মানুষের দৈনন্দিন আচার-আচরণ, কজকর্ম, পোশাক-পরিচ্ছদ, প্রচলিত লোককাহিনী, ধর্মীয় উৎসব-অনুষ্ঠান, প্রতিষ্ঠান, চিন্তা-চেতনা সবকিছুই সংস্কৃতির মধ্যে পড়ে।

সাংস্কৃতিক জীবনে মুক্তিযুদ্ধের প্রভাব : ‘সংস্কৃতি’ বলতে শুধু সুকুমার কলার চর্চা নয়, সংস্কৃতি হলো একটি জাতির আত্মবিকাশ ও আত্মোপলব্ধির এক প্রভাবশালী প্রত্যয়। বিভেদ যেখানে, সংস্কৃতি সেখানে নেই। হিংসা যেখানে আছে, সেখানে সংস্কৃতি নেই। মুক্তিযুদ্ধে বাঙালি জাতির স্লোগান ছিল সুন্দরভাবে বাঁচার অধিকার, প্রাণের অধিকার, বাঁচার আন্দোলন। এ আন্দোলনের মূল ভিত্তি ছিল ভালোবাসা, দেশকে ভালোবাসা, দেশের মানুষকে ভালোবাসা, দেশের ভাষা-কৃষ্টি ও লালিত আচার-আচরণকে ভালোবাসা, দেশের মানুষকে ভালোবাসা, দেশের ভাষা-কৃষ্টি ও লালিত আচার-আচরণকে ভালোবাসা। আমাদের সংস্কৃতি চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ এক বলিষ্ঠ প্রত্যয়ী অনুপ্রেরণা। মুক্তিযুদ্ধ আমাদেরকে ত্যাগ করতে শিখিয়েছে, বিভেদ ভুলে একতার জয়গান গাইতে অনুপ্রাণিত করেছে। আজ আমরা স্বাধীন ভূমি পেয়েছি। আমাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গনে আজ যে জাগরণ এসেছে, তার মূলে রয়েছে ’৫২-এর অমর একুশ, আছে ’৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ। মুক্তিযুদ্ধের শিক্ষা আমাদের যে চেতনা, যে ত্যাগ, যে শিক্ষা দিয়ে গেছে, তার ওপরই গড়ে উঠেছে আমাদের বর্তমান সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডল। সুতরাং আমাদের সাংস্কৃতিক জীবনে মুক্তিযুদ্ধের এক বিশেষ প্রভাব রয়েছে।

উপসংহার : বাংলাদেশের মানুষের জাতীয় জীবনে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা একটি বলিষ্ঠ চেতনা, আত্মপ্রত্যয়েল দৃঢ় উচ্চারণ। প্রখ্যাত চিন্তাবিদ মনীষী সৈয়দ ইসমাইল হোসেন সিরাজী লিখেছেন, ‘আলোক ব্যতীত যেমন পৃথিবী জাগে না, স্রোত ব্যতীত যেমন নদী টেকে না, স্বাধীনতা ব্যতীত তেমনি জাতি কখনো বাঁচিতে পারে না।’ আমরাও সেই চিরন্তন সত্যের পথ ধরেই ১৯৭১ সালে এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জন করেছি আমাদের প্রাণপ্রিয় স্বাধীনতা। ১৯৭১ সালের ঐতিহাসিক সেই মুক্তিযুদ্ধ সংঘটিত হয়েছিল যে বোধ বা চেতনাকে কেন্দ্র করে তারই নাম মুক্তিযুদ্ধের চেতনা। ত্রিশ লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে আমরা যে স্বাধীনতা অর্জন করেছি তাকে চির সমুন্নত রাখার ক্ষেত্রে আবহমান কাল ধরে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রেরণা যোগাবে এ জাতিকে, যা সংস্কৃতি চেতনার ও বলিষ্ঠ প্রত্যয়ী অনুপ্রেরণা।


[ একই রচনা আরেকটি বই থেকে সংগ্রহ করে দেয়া হলো ]


ভূমিকা : মানুষ বন্ধন থেকে, অন্ধ সংস্কার থেকে, দাসত্ব থেকে মুক্তি চায়। সে মাথা উঁচু করে মানুষের অধিকার নিয়ে বাঁচতে চায়। এই মুক্তি ও বাঁচার জন্য যুদ্ধ করে। প্রতিক্রিয়াশীল, অত্যাচারী শাসকের বিরুদ্ধে সে শিরদাঁড়া সোজা করে দাঁড়ায়। প্রথমে তার কণ্ঠ হয় সোচ্চার, অন্যায়ের বিরুদ্ধে সে প্রতিবাদী হয়। তারপর নির্যাতন, নিপীড়ন যখন নেমে আসে তখন সে অস্ত্র তুলে নেয় হাতে। বাংলাদেশের মানুষ নির্যাতনের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছিল, তাদের চেতনার আকাশ মুক্তির আকুলতায় ছিল উন্মুখ। সে আকাশে স্বাধীনভাবে উড়ার আকাঙ্ক্ষা তাকে অধীর করে তুলেছিল। তাই তার ভাষা, সংস্কৃতিকে কেড়ে নিতে এগিয়ে এসেছিল যারা তাদের বিরুদ্ধে তারা সংগ্রামে লিপ্ত হয়। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ শুধু একখণ্ড ভূমি অধিকার করার যুদ্ধ নয়। এ যুদ্ধের চেতনা ছিল অনেক গভীরে-আত্মমুক্তি ও আত্মবিকাশের আকাঙ্ক্ষায় লালিত।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনার স্বরূপ : মানুষ বাঁচতে চায় সুখে ও আনন্দে। কিন্তু একশ্রেণির মানুষ তার বাঁচার স্বপ্নকে বানচাল করে অপকৌশলে। তারা আধিপত্য বিস্তার করতে চায়। ভাষার অধিকার কেড়ে নিয়ে অন্ধকারে নিক্ষেপ করতে চায় সমগ্র জাতিকে। দীর্ঘদিন পরাধীন থাকার পর স্বাধীনতা এসেছিল আশার আলো নিয়ে। কিন্তু আলো হারিয়ে গেল, ঢাকা পড়ে গেল স্বার্থের কুয়াশা জালে। এই কুয়াশা জাল ছিন্ন করে আলোক ভুবন রচনা করার অমল আগ্রহে উদ্দীপ্ত হয়ে উঠেছিল বাংলাদেশের মানুষ। তারা মায়ের ভাষার মর্যাদা রক্ষায় বুকের রক্ত দিল। ঐতিহ্য আর সংস্কৃতির অপমৃত্যু রোধে তারা এগিয়ে এল। বঞ্চনা, অবহেলা আর শোষণের বিরুদ্ধে তারা সোচ্চার ও সক্রিয় হল। মুক্তিযুদ্ধের বিভীষিকার মাঝে তারা নিজেকে সপে দিল। এ দুঃসাহসিক অসম যুদ্ধে তাদের মূল লক্ষ্য ছিল দেশকে বিদেশি শাসনমুক্ত করে দেশীয় সংস্কৃতির যথার্থ মর্যাদা প্রতিষ্ঠা। মুক্তিযুদ্ধ বঞ্চনার বিরুদ্ধে এক নির্মম প্রতিবাদ, এক নিষ্ঠুর আঘাত।

সংস্কৃতি কি? : সংস্কৃতি হল মানুষের আচার-আচরণকে পরিশীলিত করে জ্ঞান ও কর্মের সহযোগী হয়ে, সত্য ও সুন্দরের পথে এক সম্মিলিত সুন্দর জীবন ভাবনার সফল রূপায়ণ। মানুষ জন্মেই মানুষ হয় না, তাকে সাধনা করতে হয়। এই সাধনার মূল আশ্রয় তার আত্মা। আত্মার আনন্দকে অবিনাশী করে তোলার সাধনাই সংস্কৃতি। হিংসা-বিদ্বেষের ঊর্ধ্বে এক ঘনিষ্ঠ জীবনবোধ, এক পরিশীলিত জীবন কামনা সংস্কৃতির মূল কথা। আমাদের দেশ, ভাষা, মাটি, মানুষ সবই আমাদের প্রিয়। আমাদের চেতনায় এক সুন্দর পৃথিবী বিরাজ করে। সে পৃথিবীতে শোষণ নেই, শাসনের নামে নির্যাতন নেই, ধর্মের নামে প্রতিহিংসা ও ঘৃণা নেই। মনুষ্যত্ব যে সবচেয়ে বড় সত্য সে বোধ বা চেতনা থেকেই আমাদের মুক্তির আকুলতা মুকুলিত হয়েছিল। এ আমাদের সংস্কৃতি। অন্যায়কে, অসত্যকে, হিংসা-বিদ্বেসকে দূরে সরিয়ে মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার মহৎ অভিযাত্রাই আমাদের সাংস্কৃতিক জীবনের উজ্জ্বল আনন্দ। সে আনন্দের প্রতিষ্ঠা, শুভ ও কল্যাণের আবাহন আমাদের সংস্কৃতির উত্তরাধিকার। সংস্কৃতি বলতে আমরা অতীতের অন্ধ অনুসরণকে বুঝি না, আমরা মুক্ত বুদ্ধির আলোকে সংস্কৃতিকে নবরূপে প্রতিষ্ঠার প্রত্যয়ী পথিক। এক কথায় দেশকে ভালবাসা, দেশের মানুষকে ভালবাসা, মায়ের মুখের ভাষাকে মর্যাদা দেয়া আমাদের কর্তব্য। এই কর্তব্য সচেতনতা আমাদের মনের আকাশে পান্না হয়ে জ্বলে।

সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার : দীর্ঘদিন আমরা পরাধীন ছিলাম। পরাধীনতা আমাদেরকে অন্ধকারে নিক্ষেপ করেছিল। আমাদের ভাষার মর্যাদা হয়েছিল লুণ্ঠিত, আমাদের মাঝে বিভেদের বীজ বুনে দেয়া হয়েছিল। আমরা উন্মত্ত হয়ে উঠেছিলাম হিংসার পথে। কিন্তু এ আমাদের উত্তরাধিকার নয়। আমরা এদেশে আবহমানকাল ধরে বাস করে এসেছি। আমাদের চেতনায় এক নির্মল ভালবাসা খেলা করেছে। মানুষ হিসেবে আমরা বাঁচতে চেয়েছি। তবে সংগ্রাম করেছি বিদেশি দস্যুর বিরুদ্ধে, সংগ্রাম করেছি কূটচক্রী সুবিধাভোগীদের বিরুদ্ধে। আমাদের দেশের মাঠভরা ফসল, আর গলাভরা গান এই-ই ছিল আমাদের সংস্কৃতি। দাসত্বের তিলক ধারণ করে আমরা রাজা হতে চাইনি, আমরা গরুর রাখাল হয়ে স্বাধীনভাবে বাঁচতে চেয়েছি। এই স্বাধীনভাবে বাঁচাই আমাদের সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকার। এই বাঁচার চেতনাই আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সৈনিকে রূপান্তরিত করেছিল।

উপসংহার : আমাদের সংস্কৃতির উত্তর কৌশলগত আগ্রাসনগত আমাদের চেতনায় মুক্তিযুদ্ধের বীজ বুনে দিয়েছিল। পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা প্রসঙ্গকে কেন্দ্র করে সে বীজ অংকুরিত হয় এবং নির্যাতন, বঞ্চনা, বিভেদ সৃষ্টির অপকৌশল ইত্যাদি প্রতিকূল আবহাওয়ায় সে বিদ্রোহবৃক্ষ মহীরূপে পরিণত হয়। তারই ছায়াতলে লালিত আমাদের স্বপ্নের, আমাদের সাধনার জগৎ। সে সুন্দর জগতকে আবাহন করতে গিয়েই আমাদের ধরতে হয়েছিল অস্ত্র। আমাদের অস্ত্রধরার মূল চেতনা ছিল দেশের মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা। সে অধিকার বাঁচার। শিক্ষার আনন্দে উদ্বোধিত। আমরা এখন স্বাধীন। এই স্বাধীন দেশে আমাদের মনের প্রসার ঘটিয়ে ভ্রাতৃত্ববোধের ভিত্তির উপর এক অনাবিল জীবনধারা গড়ে তোলাই আমাদের সাধনা।


আরো দেখুন :
রচনা : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান
রচনা : বাংলাদেশের সমাজ কাঠামো পরিবর্তনে মুক্তিযুদ্ধ
রচনা : আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা
রচনা : মুক্তিযুদ্ধ এবং আজকের বাংলাদেশ
রচনা : বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট
রচনা : ভাস্কর্যে মুক্তিযুদ্ধ

No comments