আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস

৬ষ্ঠ শ্রেণি : অ্যাসাইনমেন্ট : বাংলা : ৫ম সপ্তাহ : ২০২১

৬ষ্ঠ শ্রেণি : অ্যাসাইনমেন্ট : বাংলা : ৫ম সপ্তাহ

এ্যাসাইনমেন্ট বা নির্ধারিত কাজ :
বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন সহপাঠীর প্রতি তোমার আচরণ কেমন হওয়া উচিত বা অনুচিত তা একটি ছকের মাধ্যমে তুলে ধর।

নমুনা সমাধান

বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন সহপাঠীর প্রতি আমার আচরণ যত্নশীল ও সাবলীল হওয়ার উচিত, আমার ব্যবহারে কোন প্রকার অবজ্ঞা বা অপমান যেন প্রকাশ না পায় তারই একটি উচিত ও অনুচিত ছক দেখানো হলো।

সকল শিশু স্বাভাবিক জীবন নিয়ে জন্মগ্রহণ করে না। কিছু শিশুর মাঝে কিছু ভিন্ন আচরণ দেখাযায়। যা সাধারণত শারীরিক ও মানসিক উভয় হতে পারে। এই সকল শিশুকে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশু বলা হয়ে থাকে। কারণ কোন একটি শারীরিক বা মানসিক প্রতিবন্ধকতার জন্য সে সঠিক ভাবে বেড়ে উঠতে পারে না। এমনকি সকলের সাথে মিশতেও পারে না। প্রাথমিকভাবে তাদের অন্যের সাহায্যের প্রয়োজন পরে।

অনুচিত উচিত
তারা কথা বলতে চাইলে এড়িয়ে যাওয়া।
তাদের সাথে সহজ ও সাবলীল ভাষায় কথা বলা।
শ্রেণিকক্ষের পেছনের সিটে বসতে দেয়া।
যেহেতু এই সকল সহপাঠীদের বুঝতে সময় বেশি লাগে তাই শ্রেণিকক্ষের প্রথম দিকে তাদের বসতে দেওয়া।
কিছু বুঝতে চাইলে, ‘সম্ভব না’ বলে আঘাত করা।
একটু সময় দিয়ে ধীরে ধীরে বুঝাতে হবে এবং নোট খাতায় লিখে দেওয়া বা লিখতে সাহায্য করতে হবে।
তারা কিছুটা অক্ষম বলে প্রতিনিয়ত সেটা বলে কটাক্ষ করা।
কখনো কটাক্ষ না করা এবং খেলাধূলায় তাদেরকে সাথে নেওয়া বা আনন্দ উপভোগ করা।
অটিস্টিক বা পাগল বলে গালি দেওয়া।
বন্ধুসুলভ আচরণ করা।
বিপদে পড়লে ঠাট্টা, তামাশা করা।
সকল সমস্যা সমাধানে পাশে দাঁড়ানো।
তাদের অসুস্থতাকে অভিশাপ প্রমাণ করা।
তাদের অসুস্থতাটা কখনো তাদের বুঝতে না দেওয়া এবং হঠাৎ অসুস্থ অনুভব করলে বড়দের জানাতে হবে।
মনে আঘাত দিয়ে কথা বলা।
কোন ব্যবহারে যেন আঘাত না পায় সে দিকে খেয়াল রাখা। সবসময় হাসিখুশি ভাবে সময় কাটানো।
হাঁটা বা চলাফেরা করার সময় পাশাপাশি চলতে না পারলে তাদের পিছন ফেলে এগিয়ে হাঁটা।
তাদেরকে নিজেদের পাশাপশি রেখে সবাই মিলে সমান তালে হাঁটা এবং আনন্দ করার সময় তাদের অংশগ্রণ নিশ্চিত করা।
অন্যরা কে কিভাবে কথা বলছে খেয়ার না করা।
শ্রেণিকক্ষে অন্যরাও যেন ভালোভাবে কথা বলে তা সব সময় খেয়াল রাখা এবং সবাইকে উপরের বিষয়গুলো মনে রেখে চলা।

এ ধরনের শিশুরা সামাজিক ও প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে প্রায় ক্ষেত্রে অবহেলিত। দেখতে না পাওয়া, কথা বলতে না পারা, কম বুঝা, শুনতে না পাওয়া, ধীরে চলা ইত্যাদি এদের বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশু অন্যদের মতো তাদেরও স্বাভাবিক জীবন প্রয়োজন কারণ এরা অন্যদের চেয়ে বেশি সংবেদনশীল। এদের সবসময় বাচ্চাদের মতো যত্ন নিতে হয়।

2 Comments

Post a Comment
Previous Post Next Post