বইয়ে খোঁজার সময় নাই
সব কিছু এখানেই পাই

বন্যায় ক্ষয়-ক্ষতি জানিয়ে বন্ধুকে পত্র

মনে করো, তুমি স্বপ্নন/স্বপ্না। দিনাজপুর জেলার চিরিরন্দর এলাকার অধিবাসী। তোমার বন্ধু রায়হানা বগুড়া জেলার অধিবাসী। সম্প্রতি তোমার এলাকায় যে ভয়াবহ বন্যায় মানুষের দুঃখ-কষ্ট ও ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে তার বিবরণ জানিয়ে তোমার বন্ধু/বান্ধবীকে একটি পত্র লেখো। 


চিরিরবন্দর, দিনাজপুর
৫ই আগস্ট, ২০২০

প্রিয় রায়হান,
শুভেচ্ছা নিস। অনেকদিন হলো তোর কোনো খবর জানি না। আশা করি, ভালোই আছিস। আমরা এখনো ভয়াবহ বন্যায় সম্মুখীন হয়ে খুব নাজুক অবস্থায় আছি। 

বেশ কয়েকদিন হালকা বৃষ্টিপাত হলেও গত ৩-৪ দিন যে বৃষ্টি হয়েছে তার প্রভাব খুব ভালোভাবেই পড়েছে। উত্তরের সবগুলো নদীর পানির উচ্চতা বৃদ্ধি পেয়েছে। খরস্রোতা নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে প্রতিদিন নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। ধানসহ বহু ফসলি জমি পানিতে তলিয়ে যাচ্ছে। মানুষের বাড়িঘরও এখন পানির নিচে। গবাদি পশুসহ অন্যান্য যা কিছু আছে তা নিয়ে মানুষ দুর্বিষহ জীবনযাপন করছে। এলাকায় বিশুদ্ধ খাবার পানিসহ খাদ্যের চরম অভাব দেখা দিয়েছে। পানিবাহিত রোগ ছড়িয়ে পড়েছে শিশুসহ বিভিন্ন বয়সি মানুষের মধ্যে। তাছাড়া সাপের কামড়ে বেশ কয়েকজনের মৃত্যু হয়েছে। এলাকার সব স্কুলকলেজ বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে পড়াশোনা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। পাকা রাস্তাটির প্রায় পুরো অংশ পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় যান চলাচলও অসম্ভব হয়ে পড়েছে। গ্রামের অনেককে মানবেতর জীবনযাপন করতে হচ্ছে। আমাদের অঞ্চলে নদী খরস্রোতা থাকায় প্রায় প্রতিবছরই এ এলাকা প্লাবিত হয়। তবে এবার বাঁধে ফাটল ধরায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি হয়েছে। জনজীবন বিপর্যস্ত হয়েছে অনেক বেশি। সরকারিভাবে তাদের সাহায্য করা হলেও তা প্রয়োজন মেটাতে পারছে না। 

আজ আর নয়, তোরা সবাই ভালো থাকিস। চাচা-চাচিকে আমার সালাম দিস। আমাদের জন্য দোয়া করিস। 

ইতি-
স্বপন

No comments