বইয়ে খোঁজার সময় নাই, সব কিছু এখানেই পাই

অনুচ্ছেদ : বাংলাদেশের ঋতুবৈচিত্র

বাংলাদেশের ঋতুবৈচিত্র্য


ষড়ঋতুর দেশ বাংলাদেশ। গ্রীষ্ম, বর্ষা, শরৎ, হেমন্ত, শীত ও বসন্ত- এ ছয় ঋতুর আবর্তন বাংলাদেশের প্রকৃতি ও জনজীবনকে করে তোলে বৈচিত্র্যময়। প্রতিটি ঋতু তার স্বতন্ত্র ও অনন্য বৈশিষ্ট্য নিয়ে হাজির হয় এবং নিজের অনাবিল সৌন্দর্য উপহার দিয়ে বিদায় নেয়। এক এক ঋতু আমাদের জীবনে নিয়ে আসে একেক রকম ফুল, ফল আর ফসলের সম্ভার। বাংলার প্রকৃতিতে ষড়ঋতুর এ পালাবদল অফুরন্ত সৌন্দর্যের ও বৈচিত্র্যের সৃষ্টি করে। জলবায়ুর প্রভাব ও ভৌগোলিক অবস্থানের কারণেই মূলত এদেশে ছয়টি ঋতু পর্যায়ক্রমে আবর্তিত হয়। বর্ষপঞ্জির হিসেবে বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ দুই মাস গ্রীষ্মকাল, আষাঢ়-শ্রাবন বর্ষাকাল, ভাদ্র-আশ্বিন শরৎকাল, কার্তিক-অগ্রহায়ণ হেমন্তকাল, পৌষ-মাঘ শীতকাল এবং ফাল্গুন-চৈত্র বসন্তকাল। তবে ঋতুর পরিবর্তন সকল সময় যেমন মাসের হিসাব মেনে চলে না, তেমনি আবার হঠাৎ করে রাতারাতিও এর পরিবর্তন ঘটে না। অলক্ষ্যে বিদায় নেয় এক ঋতু, নিঃশব্দে আগমন ঘটে নতুন ঋতুর। তবে প্রতিটি ঋতুর আগমন ঘটে ভিন্ন ভিন্ন রূপ, রং ও সৌন্দর্য নিয়ে। গ্রীষ্মের দাবদাহ ও রসালো ফলের সম্ভার, বর্ষার সজল মেঘের বৃষ্টি ও সবুজ প্রকৃতি, শরতের আলো ঝলমল স্নিগ্ধ আকাশ ও সৌন্দর্য, হেমন্তের ফসলভরা সোনালি মাঠ, শীতের শিশিরভেজা সকাল ও নানারকম পিঠার আয়োজন আর বসন্তের পুষ্পসৌরভ এদেশের প্রকৃতি ও জনজীবনে নিয়ে আসে বৈচিত্র্যের ছোঁয়া। মোটকথা, ছয়টি ঋতুর পরিক্রমায় বাংলাদেশ বিচিত্র সৌন্দর্যের লীলাভূমিতে পরিণত হয়েছে।

No comments