বইয়ে খোঁজার সময় নাই
সব কিছু এখানেই পাই

সাধারণ জ্ঞান : মুক্তিযুদ্ধে খেতাবপ্রাপ্তগণ / সপ্তম নৌবহর / কনসার্ট ফর বাংলাদেশ / অপারেশন জ্যাকপট / সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড / বীরশ্রেষ্ঠ উপাধী

মুক্তিযুদ্ধে খেতাবপ্রাপ্তগণ

মুক্তিযুদ্ধে খেতামপ্রাপ্ত যোদ্ধার সংখ্যা কত? – ৬৭৬ জন (তাদের মধ্যে বীরশ্রেষ্ঠ ৭ জন, বীর উত্তম ৬৮ জন, বীর বিক্রম ১৭৫ জন ও বীর প্রতীক ৪২৬ জন।)

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে একমাত্র বিদেশী বীর প্রতীক কে? – অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক বাটা সু কোম্পানির ম্যানেজার ডব্লিউ এস ওয়াডারল্যান্ড।

দেশের একমাত্র পাহাড়ি আদিবাসী বীর বিক্রম কে? – ইউ কে চিং।

বাংলাদেশে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুরস্কার কোনটি? – বীরশ্রেষ্ঠ।

স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদানের জন্য কতজনকে বীরশ্রেষ্ঠ উপাধি দেয়া হয়েছে? – ৭ জনকে।

৭ জন বীরশ্রেষ্ঠের মধ্যে কতজন কোন বাহিনীর ছিলেন? – ৩ জন বীরশ্রেষ্ঠের মধ্যে কতজন কোন বাহিনীর ছিলেন? ৩ জন সেনাবাহিনী, ২ জন ইপিআর, ১ জন নৌবাহিনী ও ১ জন বিমান বাহিনীর।

বীরশ্রেষ্ঠ শহিদ ফ্লাইট লে. মতিউর রহমানের কবর প্রথমে কোথায় ছিল? – করাচির মাসরুর বিমান ঘাঁটিতে।

বর্তমানে বীরশ্রেষ্ঠ মতিউর রহমানের সমাধি কোথায়? – মিরপুর বদ্ধিজীবী কবরস্থানে (২৪ জুন ২০০৬ তার দেহাবশেষ পাকিস্তান থেকে দেশে আনা হয়)।

নৌবাহিনীর স্কোয়াড্রন লিডার বীরশ্রেষ্ঠ রুহল আমিন কোথায় নিহত হন এবং তাকে কোথায় সমাহিত করা হয়? – খুলনায় নৌবাহিনীর জাহাজ বিএনএস পলাশে; খুলনার রূপসা উপজেলা বাগমারা গ্রামে রূপসা নদীর তীরে তাকে সমাহিত করা হয়।

বীরশ্রেষ্ঠ সিপাহী হামিদুর রহমান কবর কোথায় ছিল? – ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলা থেকে ৮৬ কি.মি. দূরে ধলাই জেলার আমবাসা শহরের অদূরে হাতিমারাছাড়া গ্রামে।

বর্তমানে তার কবর কোথায়? – মিরপুর বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে। (১১ ডিসেম্বর ২০০৭ সমাহিত করা হয়)।

স্বাধীনতা যুদ্ধে বীরউত্তম উপাধি লাভ করেন কতজন? – ৬৮ জন।

স্বাধীনতা যুদ্ধে বীরবিক্রম উপাধি লাভ করেন কতজন? – ১৭৫ জন।

কতজন স্বাধীনতা যুদ্ধে বীরপ্রতীক উপাধি লাভ করেন? – ৪২৬ জন।

দুইজন খেতাবধারী মহিলা মুক্তিযোদ্ধার নাম কী? – ক্যাপ্টেন সেতারা বেগম ও তারামন বিবি।

ক্যাপ্টেন সেতারা বেগম ও তারামন বিবিকে কী খেতাবে ভূষিত করা হয়? – বীর প্রতীক।

বাংলাদেশে সর্বকনিষ্ঠ খেতাবধারী মুক্তিযোদ্ধা কে? – বীর প্রতীক শহীদুল ইসলাম (লালু), বার বছর।

ডা. সেতারা বেগম সেনাবাহিনীতে কী পদে ছিলেন? – ক্যাপ্টেন (তিনি বর্তমানে জিবীত নেই)।

তারামন বিবি কোন সেক্টরে যুদ্ধ করেন? – ১১নং অর্থাৎ ময়মনসিংহ ও টাঙ্গাইল জেলায়।

তারামন বিবিকে (বীর প্রতীক) সরকার যে বাড়ি দান করে তা কোথায় অবস্থিত? – কুড়িগ্রাম জেলার রাজিবপুর থানায়।

কাঁকন বিবি কে? – আদিবাসী নারী মুক্তিযোদ্ধা কাঁকন বিবি (কাকত হেনইঞ্চিতা)। ১৯৯৬ সালে তৎকালীন ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বীর মুক্তিযোদ্ধা কাঁকন বিবিকে রাষ্ট্রীয়ভাবে বীর প্রতীক উপাধি স্বীকৃতি দিলেও তা রাষ্ট্রীয় গেজেটে প্রকাশিত হয়নি।

সপ্তম নৌবহর

সপ্তম নৌবহর কী? – পারমাণবিক অস্ত্রে সুসজ্জিত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কয়েকটি জাহাজ সমন্বয়ে গঠিত নৌবহর।

স্বাধীনতাযুদ্ধকালে ভিয়েতনামে টংকিং উপসাগরে অবস্থানরত মার্কিন সপ্তম নৌবহর কেন কবে বঙ্গোপসাগরের উদ্দেশ্যে যাত্রা শুরু করে? – বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে পাকিস্তানকে সহায়তা করার জন্য; ৯ ডিসেম্বর ১৯৭১।

সপ্তম নৌবহরে কয়েকটি জাহাজ সমন্বয়ে কী গঠন করা হয়? – ‘টাস্কফোর্স-৭৪’।

সম্পূর্ণ পারমাণবিক অস্ত্রে সজ্জিত টাস্কফোর্সটির নেতৃত্বদানকারী জাহাজটির নাম কী ছিল? – ইউএসএস এন্টারপ্রাইজ।

USS Enterprise এর সামরিক নাম কী? – CVN-65 (পূর্বে নাম ছিল CVA-(N)-65, এর ডাকনাম Big E বা Mobile Cheronobyl বা Quarter Mile Island)।

বিশ্বের প্রথম পারমাণবিক শক্তিসম্পন্ন বিমানবাহী রণতরীর নাম কী? – ইউএসএস এন্টারপ্রাইজ।

’ইউএসএস এন্টারপ্রাইজ’-এর দৈর্ঘ্য কত? – ১১২৩ ফুট বা ৩৪২.৩ মিটার।

কনসার্ট ফর বাংলাদেশ

কনসার্ট ফর বাংলাদেশ কবে, কোথায় অনুষ্ঠিত হয়? – ১৯৭১ সালের ১ আগস্ট নিউইয়র্ক সিটি ম্যাডিসন স্কয়ার গার্ডেনে।

কনসার্ট ফর বাংলাদেশ কী? – মুক্তিযুদ্ধকালে বাংলাদেশী শরণার্থীদের পক্ষে জনমত ও তহবিল সংগ্রহের জন্য আয়োজিত কনসার্ট। তত্ত্বাবধানে – জর্জ হ্যারিসন।

কনসার্ট ফর বাংলাদেশ -এর প্রযোজনা করেন কে? – জর্জ হ্যারিসন ও অ্যালেন ক্লেইন।

কনসার্ট ফর বাংলাদেশ -এর পরিচালক কে ছিলেন? – সল সুইমার।

কনসার্ট ফর বাংলাদেশ -এর উদ্যোক্তা কে ছিলেন? – জর্জ হ্যারিসন ও পণ্ডিত রবিশঙ্কর।

অপারেশন জ্যাকপট

অপারেশন জ্যাকপট কী? – পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর বাংলাদেশ নৌপথের সৈন্য ও অন্যান্য সমর সরঞ্জাম পরিবহনের ব্যবস্থা বানচাল করা।

অপারেশন জ্যাকপট কবে পরিচালনা করা হয়? – ১৫ আগস্ট ১৯৭১।

সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড

‘সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড’ কবিতাটি কত লাইনের? – ১৫১ লাইনের।

মুক্তিযুদ্ধের ওপর রচিত কবিতা ‘সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড’-এর রচয়িতা কে? – অ্যালেন গিনসবার্গ (মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র)।

সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড-এর প্রথম চার লাইন কী?
Millions of babies in pain 
Millions of mothers in rain 

Millions of brothers in woe 

Millions of children nowhere to go. 

‘সেপ্টেম্বর অন যশোর রোড’ কবিতাটি কত লাইনের? – ১৫১ লাইনের।

অ্যালেন গিনসবার্গ কবে কবিতাটি রচনা করেন? – ১৯৭১ সালের ১৪-১৬ নভেম্বর।

বীরশ্রেষ্ঠ উপাধী

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারীদের জন্য সর্বশ্রেষ্ঠ রাষ্ট্রীয় উপাধি বীরশ্রেষ্ঠ। ১৯৭৩ সালের ১৫ ডিসেম্বর সরকারি গেজেট নোটিফিকেশন অনুযায়ী বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সাতজন বীর সন্তানকে মরণোত্তর বীরশ্রেষ্ঠ উপাধিতে ভূষিত করা হয়। বীরশ্রেষ্ঠ সাতজন হলেন-
১. ল্যান্স নায়েক নূর মোহাম্মদ শেখ;
২. ল্যান্স নায়েক মুন্সী আবদুর রউফ;
৩. ক্যাপ্টেন মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর;
৪. স্কোয়াড্রন লিডার মোহাম্মদ রুহুল আমিন;
৫. সিপাহি মোহাম্মদ মোস্তফা কামাল;
৬. ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট মতিউর রহমান এবং
৭. সিপাহি মোহাম্মদ হামিদুর রহমান।

1 comment:


Show Comments